Book

০২) আপনি কার কাছ থেকে ইলম গ্রহণ করছেন সে ব্যপারে সচেতনতা

যুবকদের জন্য সালাফদের নসিহা – দ্বিতীয় নসিহা

আপনি কার কাছ থেকে ইলম গ্রহণ করছেন সে ব্যপারে সচেতনতা।

আনাস ইবনে সিরীন (রঃ) এর নসিহা।
হাম্মাদ বিন যায়েদ (রঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,

আমরা আনাস বিন সিরীন (রঃ) এর নিকটে গেলাম, যখন তিনি অসুস্থ ছিলেন। অতঃপর তিনি বললেন, “হে যুবকেরা! আল্লাহ তাআলাকে সর্বোচ্চ ভয় করাে। আর তােমরা সতর্ক থাকবে, যাদের নিকট থেকে হাদীসের জ্ঞান অর্জন করবে তাদের ব্যাপারে। কেননা, অবশ্যই এ হাদীসগুলাে তােমাদের দ্বীনের অংশ।’

আবু বকর আল-খাত্বীব আল-বাগদাদী (মৃ. ৪৬৩), আল-জামে' লি আখলাকির রাবী ওয়া আদাবিস সামি', ১ম খণ্ড (রিয়াদ: মাকতাবতুল মা'আরিফ, তা.বি.), পৃ. ১২৯, হা: ১৩৯।

হাদীস সংগ্রহ ও জ্ঞান অন্বেষনে প্রত্যয়ী যুবকদের জন্য এটি একটি অসাধারণ নসিহা। এটা নির্ভরযােগ্য, পারদর্শী, জ্ঞানের ক্ষেত্রে দৃঢ়তাসম্পন্ন ও দূরদর্শিতাপূর্ণ এবং যাদের জ্ঞানের ক্ষেত্রে জেষ্ঠ্যতা রয়েছে তাদের থেকে জ্ঞান অর্জন করা একান্ত উচিত। তারা প্রত্যেকের কাছ থেকে ইলম বা জ্ঞান গ্রহণ করবে না। বরং তারা শুধু আহলুস। সুন্নাহ থেকে ইলম নেবে, যার জীবন সুন্নাহর উপর দৃঢ়ভাবে রােপিত হয়েছে।

ইবনে শওযাব (রঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,

“নিশ্চয় সে যুবকের জন্য আল্লাহর নিয়ামাত রয়েছে, যে নিজেকে ইবাদতের জন্য প্রস্তুত করে এমন ব্যক্তির সাথে বন্ধুত্ব বজায় রেখে, যিনি আহলুস সুন্নাহর ওপর প্রতিষ্ঠিত। আর তিনিই সে যুবককে সুন্নাহর ওপর পরিচালিত করে।

আমর ইবনে কায়েস আল-মুলাঈ (রঃ) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন তুমি কোন যুবককে আহলুস সুন্নাহ এর সাথে বেড়ে উঠতে দেখবে, তখন তার প্রতি আশাবাদী হবে আর যখন তাকে বিদআতি ব্যক্তির সাথে বেড়ে উঠতে দেখবে, তখন হতাশ হবে। প্রকৃতপক্ষে যুবক প্রথমে যে আদর্শেরে প্রতি বেড়ে ওঠে, তার দিকেই ধাবিত হয়।

আমর ইবনে কায়েস (রঃ) হতে আরাে বর্ণিত, তিনি বলেন,

নিশ্চয় যে যুবক প্রতিপালনে আহলে ইলমদের সহচর্যে প্রভাবিত হয়, সে নিরাপদের অধিক নিকটবর্তী হয় আর যে অন্যদের প্রতি ঝুঁকে পড়ে, সে ধ্বংসের অধিক নিকটবর্তী হয়।

ইবনে বাত্তাহ আবকারী (মৃ.৩৮৭), আল-ইবানাহ আল-কুবরা, ১ম খণ্ড (রিয়াদ: দারুর রাইয়াহ, ১ম সংস্করণ, ২০০৫ খ্রি.), পূ, ২০৬, হা: ৪৫।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *