Book

০৫) আখেরাতের অন্বেষণে অগ্রাধিকার দিন

যুবকদের জন্য সালাফদের পঞ্চম নসিহা।

আখেরাতের অন্বেষণে অগ্রাধিকার দিন।

হাসান আলি-বসরী (রঃ) (মৃত্যু ১১০ হিজরি) এর নসিহা
হাসান আল-বসরী (রঃ) থেকে বর্ণিত হয়েছে, তিনি প্রায়শই বলতেন,

‘হে যুবসমাজ, পরকালের পিছনে চলার বিষয়টি তােমার ওপর আবশ্যক। আমরা অনেককে দেখেছি, যারা পরকাল পাওয়ার নেশায় ছুটে চলেছে, তারা দুনিয়া ও পরকাল উভয়টাই পেয়েছে। আর যারা দুনিয়ার নেশায় ছুটে চলেছে, তাদের একজনকেও আমরা দেখিনি, যে তারা দুনিয়া ও পরকাল উভয়টি পেয়েছে।

বাইহাকী, কিতাবুয যুহদ, ১২, আল-জাওহারুন নুকা আল-মুলতাকাত মিন যুহুদিল বাইহাকী, ১ম খণ্ড, পৃ. ২।

এটি একটি অত্যন্ত উদ্বেগজনক বিষয় যে, ইমাম হাসান আল-বসরী(রঃ) যুবকদেরকে উক্ত বিষয়টি সম্পর্কে সতর্ক করেছিলেন যেন সে আখেরাতকে তার উচ্চাকাঙ্ক্ষা করে তােলে, এটি অর্জনে প্রচেষ্টা করে এবং তার সময়কে তার রবের নিকটবর্তী করবে এমন কিছু নিয়ে ব্যস্ত রাখে। যদি সে তা করে, আল্লাহ তা’আলা অবশ্যই তার নায্য অংশ ও দুনিয়ার অংশে বরকত দান করবেন।

এটা বােঝা যাবে না যে, একজন ব্যক্তির জন্য দুনিয়াতে অগ্রিম কতটুকু দেওয়া হয়েছে তার জীবিকা, তার বাসস্থান ও তার পরিধানবস্ত্র ইত্যাদি এবং কতটুকু তার পরিবার-পরিজনের জন্য অবশিষ্ট রাখা হয়৷ বরং একজন মুসলিমের কর্ম ও পরিশ্রম করে অর্থ-সম্পদ করা কখনােই ক্ষতির কারণ নয়। তাতে যদি সে শ্রম দিয়ে প্রচুর অর্থ-সম্পদের মালিকও হয়। কিন্তু তাকে যা ক্ষতি করতে পারে তা হলাে যদি সে দুনিয়াকে তার প্রধান উচ্চাকাঙ্ক্ষা, সাধনা এবং উদ্দেশ্য এবং তার জ্ঞানের ব্যাপ্তি হিসেবে তৈরি করে। যেমনটি নাবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লামের পঠিত দু’আয় বর্ণিত হয়েছে,

দুনিয়া অর্জনকে আমাদের ও আমাদের জ্ঞানের উদ্দেশে রূপান্তর করাে না।

জামে তিরমিযী, হা: ৩৪২৪; আল্লামা আলবানী ২) আল-কালিমুত তইয়্যিৰ গ্রন্থে হাসান বলেছেন, নং ২২৬

অনুরুপভাবে রাসূল সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন,

‘অবশ্যই, আপনি আপনার উত্তরাধিকারীদের স্বাবলম্বীতার ওপর ছেড়ে দিন যা লােকদের কাছ থেকে ভিক্ষা করার ওপর নির্ভরশীল রেখে যাওয়ার চেয়ে উত্তম।

সহীহুল বুখারী, হা: ১২৯৫, সহীহ মুসলিম, হা: ১৬২৮।

সুতরাং যে ব্যক্তি আখেরাতকে তাদের প্রধান আকাঙক্ষা করে তােলে, আল্লাহ তাদের বিষয়াদি সুসংগতভাবে একত্রিত করবেন এবং দুনিয়া তাদের কাছে বাধ্য হয়ে আসবে। আর যে ব্যক্তি পৃথিবীকে তাদের প্রধান উচ্চাকাঙ্ক্ষা করে তােলে, আল্লাহ তাদের দৃষ্টিতে দারিদ্রতার প্রতিচ্ছবি দান করবেন এবং আল্লাহ তাআলা তাদের জন্য এ পৃথিবীতে যা লিখেছিলেন তা ব্যতীত তাদের কাছে কিছুই আসবে না।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *